আফ্রিকান গতিময় উইকেটে সরফরাজের বাজির ঘোড়া ইয়াসির!

নিজস্ব প্রতিবেধক
  • প্রকাশিত : বুধবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ৪৯০ দেখেছেন

স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বক্সিং ডে টেস্টে আগামীকাল মুখোমুখি হচ্ছে পাকিস্তান। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচটি হবে সেঞ্চুরিয়নের চিরাচরিত গতিময় বাউন্সি উইকেটে। কিন্তু পাক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ বাজি রাখছেন স্পিনার ইয়াসির শাহর ভেল্কির ওপর। পাক দলের হেড কোচ মিকি আর্থারের পিচ পরিদর্শনের সূত্র ধরে সরফরাজ এমনটা ভাবছেন।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি সুপার লিগ ও গত বছর অনুষ্ঠিত একটি টেস্ট ম্যাচে সেঞ্চুরিয়নের উইকেটের আচরণ দেখে পাক দলের দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ আর্থার পিচকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের উইকেটের সাথে তুলনা করেন। যদিও ম্যাচ শুরুর মাত্র ৪৮ ঘণ্টা আগে উইকেটটি এখনো সম্পূর্ণভাবে সবুজ ঘাসে মোড়ানো, তবু কোচ আর্থারের কথায় আস্থা রেখে ইয়াসির শাহকেই আফ্রিকানদের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি বলছেন অধিনায়ক সরফরাজ।

সরফরাজ বলছেন- ‘এখানে টস জিতলে অবশ্যই চোখ বন্ধ করে সবাই ব্যাট করবে। উইকেট শুরুর দিকে পেসবান্ধব থাকলেও শেষে স্পিনারদের জন্য সহায়ক হয়। তাই চতুর্থ ইনিংসে রান তাড়া করার ঝুঁকি কেউই নিতে চাইবে না।’

ইনজুরির জন্য মোহাম্মদ আব্বাস প্রথম টেস্ট থেকে ছিটকে গেলেও হাসান আলী, নবাগত শাহীন আফ্রিদি আর দলে ফিরে আসা তারকা পেসার মোহাম্মদ আমিরকে নিয়ে পাকিস্তানের পেস আক্রমণটা এক কথায় দারুণ। কিন্তু মাত্র ৩৩ টেস্টে দুই শতাধিক উইকেট নেওয়া ইয়াসির শাহ দক্ষিণ আফ্রিকা দলকে বেশি ভোগাবেন, এমনটাই ভাবছেন সরফরাজ। দক্ষিণ আফ্রিকা দলের চিরায়ত স্পিন খেলার দুর্বলতা আর বিগত তিন বছর ধরে টেস্ট ম্যাচে ইয়াসিরের মতো বিশ্বমানের স্পিনারকে না খেলার অনভিজ্ঞতাই সরফরাজের আশার পালে জোর হাওয়া দিচ্ছে।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় একজন প্রতিমন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো নিয়ে কথা বলার সময় সম্প্রতি জুনাইদ আহমেদ পলকের মাথায় হেলমেট ছাড়া বাইকে চড়ে সচিবালয়ে যাওয়ার ঘটনা উল্লেখ করে সাংবাদিকরা ওবায়দুল কাদেরকে প্রশ্ন করেন।

তিনি বলেন, ওই প্রতিমন্ত্রী সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় আমার কাছে ভুল স্বীকার করেছেন।

‘তাকে আমি এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করেছিলাম। পরে তিনি এ ঘটনায় ভুল বুঝতে পেরে দুঃখ প্রকাশের পাশাপাশি ভবিষ্যতে এমন ঘটনা ঘটবে না বলে আমাকে কথা দিয়েছেন।’

নতুন সরকারে শপথ নেয়ার পর দিন মঙ্গলবার দুপুরে আগারগাঁওয়ের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগে দ্রুত যেতে পলক মোটরবাইকে সওয়ার হয়েছিলেন।

মোটরবাইকে চেপে অফিসযাত্রার ছবি নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টের টাইমলাইনেও পোস্ট করেন পলক। তাতে তাকে হেলমেট ছাড়া অবস্থায় দেখে সমালোচনা করেন অনেকে।

আইনপ্রণেতা হিসেবে হেলমেট না পড়ে মোটরযান আইন ভাঙায় ফেসবুকে পলকের পোস্টেই সমালোচনা করেন অনেকে।

এ প্রসঙ্গে পলক পরে সাংবাদিকদের বলেন, তাড়াহুড়ো করে যাওয়ার জন্য আমি যে বাইকের সাহায্য নিয়েছি, তার কাছে কোনো বাড়তি হেলমেট ছিল না। আর ওটা রাইড শেয়ারিংয়ের বাইকও ছিল না, ব্যক্তিগত বাইক ছিল।

হেলমেট ছাড়া বাইকে সওয়ার, পলকের দুঃখ প্রকাশ