দুপুরে নেতার জানাজার ছবি পোস্ট, কমেন্টসে এলো তারই মৃত্যুর খবর

নিজস্ব প্রতিবেধক
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০১৯
  • ৩০৩ দেখেছেন

সোমবার (২৮ জানুয়ারি) সকালে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আলম চৌধুরীর নামাজে জানাজায় অংশ নিয়ে সে ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেছিলেন ছাত্রলীগ কর্মী হামিদ হাসান মিশকাত (২২)।

কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস! একদিনের ব্যবধানে সেই মিসকাতের নিহতের খবর সেই ফেসবুকে পোস্ট করেছেন তারই কোনো বন্ধু!

সোমবার দিবাগত রাতে চন্দনাইশ উপজেলার দেওয়ানহাট এলাকায় এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন সরকারি হাজি মুহাম্মদ মহসীন কলেজের বিবিএ দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী হামিদ হাসান মিশকাত (২২) ও তার বন্ধু সাইফুল ইসলাম রকি (২২)।

মিশকাত লোহাগাড়া উপজেলার পূর্বকলাউজানের শহর বানুর বাপের বাড়ির এলাকার মৃত মাওলানা ওসমানের বড় ছেলে। নিহত রকি গ্রামের বাড়ি পটিয়া উপজেলায় বলে জানা গেছে।

মিশকাতের ফেসবুক প্রোফাইলে গিয়ে দেখা যায়, গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আলম চৌধুরীর নামাজে জানাজায় অংশ নেয়ার কয়েকটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেতা আলহাজ নুরুল আলম চৌধুরীর জানাজায়।’

সেই পোস্টে আজ সকালে সাজিদ ইসলাম সজীব নামে মিশকাতের এক বন্ধু লিখেছেন, ‘মিশকাত কি জানতো? ….কিচ্ছু বলার নাই। এভাবে মৃত্যু মেনে নেওয়া যায় না। ….কোনো প্রশ্নের উত্তর পাবো না। আল্লাহ কারো প্রশ্নের উত্তর দিবেন না।’

Meshkayt-3.jpg

এটি এম নোমান নামে আরেক বন্ধু লিখেছেন, ‘ভাগ্যের কি নির্মম লীলাখেলা, আজ তুই একজনের জানাজা পড়ে পোস্ট দিছিস, ২৪ ঘণ্টা না হতেই তোর মৃত্যুর খবর শুনতে হলো। কাল হয়তো তোর জানাজা পড়ে আমি পোস্ট করব। এইভাবে চলছে আমাদের জীবন। সবাইকে একদিন রবের কাছে চলে যেতে হবে তার ডাকে!’

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক মো. আলাউদ্দিন তালুকদার জাগো নিউজকে বলেন, ‘গতকাল মধ্যরাতে চন্দনাইশ দেওয়ানহাট এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় হামিদ হাসান মিশকাত ও সাইফুল ইসলাম রকি নামে দুই মোটরসাইকেল আরোহী আহত হন। ঘটনার অল্প সময়ের মধ্যেই সাইফুল ইসলাম রকি মারা যান। হামিদ হাসান মিশকাতকে প্রথমে চট্টগ্রাম ন্যাশনাল হাসপাতাল এবং পরে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোরে ওই যুবকের মৃত্যু হয়।’

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় একজন প্রতিমন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো নিয়ে কথা বলার সময় সম্প্রতি জুনাইদ আহমেদ পলকের মাথায় হেলমেট ছাড়া বাইকে চড়ে সচিবালয়ে যাওয়ার ঘটনা উল্লেখ করে সাংবাদিকরা ওবায়দুল কাদেরকে প্রশ্ন করেন।

তিনি বলেন, ওই প্রতিমন্ত্রী সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় আমার কাছে ভুল স্বীকার করেছেন।

‘তাকে আমি এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করেছিলাম। পরে তিনি এ ঘটনায় ভুল বুঝতে পেরে দুঃখ প্রকাশের পাশাপাশি ভবিষ্যতে এমন ঘটনা ঘটবে না বলে আমাকে কথা দিয়েছেন।’

নতুন সরকারে শপথ নেয়ার পর দিন মঙ্গলবার দুপুরে আগারগাঁওয়ের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগে দ্রুত যেতে পলক মোটরবাইকে সওয়ার হয়েছিলেন।

মোটরবাইকে চেপে অফিসযাত্রার ছবি নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টের টাইমলাইনেও পোস্ট করেন পলক। তাতে তাকে হেলমেট ছাড়া অবস্থায় দেখে সমালোচনা করেন অনেকে।

আইনপ্রণেতা হিসেবে হেলমেট না পড়ে মোটরযান আইন ভাঙায় ফেসবুকে পলকের পোস্টেই সমালোচনা করেন অনেকে।

এ প্রসঙ্গে পলক পরে সাংবাদিকদের বলেন, তাড়াহুড়ো করে যাওয়ার জন্য আমি যে বাইকের সাহায্য নিয়েছি, তার কাছে কোনো বাড়তি হেলমেট ছিল না। আর ওটা রাইড শেয়ারিংয়ের বাইকও ছিল না, ব্যক্তিগত বাইক ছিল।

হেলমেট ছাড়া বাইকে সওয়ার, পলকের দুঃখ প্রকাশ