ভোলার লালমোহন সরকারি শাহবাজপুর কলেজের গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ শিক্ষকের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিবেধক
  • প্রকাশিত : বুধবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০১৯
  • ২৯৪ দেখেছেন

নিজস্ব প্রতিবেধক, এসবি টিভি ।।

লালমোহন সরকারি শাহবাজপুর কলেজের গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ইসলাম শিক্ষা বিভাগের প্রভাষক এটিএম নুরুল আমিনের বিরুদ্ধে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ জানুয়ারী ২০১৯ তারিখ রোজ শুক্রবার লালমোহন সরকারি শাহবাজপুর কলেজ প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া একটি রেইন ট্রি গাছ কেটে নিয়েছেন, যার আনুমানিক মূল্য ২০০০০-২৫০০০০ হাজার টাকা। কলেজ প্রশাসনের সাথে আলাপ করে জানা যায় আভিযোগে অভিযুক্ত প্রভাষক এটিএম নুরুল আমিন এর আগে ২৮ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখ তার প্রভাব খাটিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া আরো দুইটি রেইন ট্রি গাছ কেটে নিয়েছেন যার ( আনুমানিক মুল্য ৩৫০০০ – ৪০০০০ হাজার টাকা) এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এই ব্যাপারে লালমোহন সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মাসুদ রানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন প্রভাষক এটিএম নুরুল আমিন গাছ কেটে নিয়েছেন এ ব্যাপারে আমরা কলেজ প্রশাসন একটি বৈঠক বসেছি। তদন্ত করে আমরা আবার আগামী ২০ ফেবরুয়ারী আবার বসবো, অভিযুক্ত হলে তার বিরুদ্ধে‌ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ নিয়ে প্রভাষক এটিএম নুরুল আমিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন। আমি গাছ কেটে বিক্রয় করে দিয়েছি গাছটি স্থানীয় বিদ্যুৎ লাইন ও কলেজের দেওয়াল উপরে থাকায়। ঝুকিপুর্ন বিভেচনা করে জনস্বার্থে গাছটি কেটেছি,তা না হলে যে কোন মুর্হুতে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারতো। এ ব্যাপারে কলেজ প্রশাসন কে অনেক বার অভহিত করেছি। তারা কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় অতি ঝুকিপর্ণ বিভেচনা করে গাছটি কেটেছি, তবে গাছটি বিক্রয়ের টাকা কলেজ কেরানির কাছে রক্ষিত আছে।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় একজন প্রতিমন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো নিয়ে কথা বলার সময় সম্প্রতি জুনাইদ আহমেদ পলকের মাথায় হেলমেট ছাড়া বাইকে চড়ে সচিবালয়ে যাওয়ার ঘটনা উল্লেখ করে সাংবাদিকরা ওবায়দুল কাদেরকে প্রশ্ন করেন।

তিনি বলেন, ওই প্রতিমন্ত্রী সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় আমার কাছে ভুল স্বীকার করেছেন।

‘তাকে আমি এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করেছিলাম। পরে তিনি এ ঘটনায় ভুল বুঝতে পেরে দুঃখ প্রকাশের পাশাপাশি ভবিষ্যতে এমন ঘটনা ঘটবে না বলে আমাকে কথা দিয়েছেন।’

নতুন সরকারে শপথ নেয়ার পর দিন মঙ্গলবার দুপুরে আগারগাঁওয়ের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগে দ্রুত যেতে পলক মোটরবাইকে সওয়ার হয়েছিলেন।

মোটরবাইকে চেপে অফিসযাত্রার ছবি নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টের টাইমলাইনেও পোস্ট করেন পলক। তাতে তাকে হেলমেট ছাড়া অবস্থায় দেখে সমালোচনা করেন অনেকে।

আইনপ্রণেতা হিসেবে হেলমেট না পড়ে মোটরযান আইন ভাঙায় ফেসবুকে পলকের পোস্টেই সমালোচনা করেন অনেকে।

এ প্রসঙ্গে পলক পরে সাংবাদিকদের বলেন, তাড়াহুড়ো করে যাওয়ার জন্য আমি যে বাইকের সাহায্য নিয়েছি, তার কাছে কোনো বাড়তি হেলমেট ছিল না। আর ওটা রাইড শেয়ারিংয়ের বাইকও ছিল না, ব্যক্তিগত বাইক ছিল।

হেলমেট ছাড়া বাইকে সওয়ার, পলকের দুঃখ প্রকাশ