‘বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় আলামত যাবে সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবে’

নিজস্ব প্রতিবেধক
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ২৪৫ দেখেছেন

বিমান ছিনতাইচেষ্টার ঘটনায় জব্দকৃত আলামত আদালতের নির্দেশনা পেলে পাঠানো হবে সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর নেয়া হবে পরবর্তী পদক্ষেপ।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বৃহস্পতিবার বিকালে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) আয়োজিত বার্ষিক পুলিশ সমাবেশ ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, বিমান ছিনতাইচেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা মামলাটি সিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিট তদন্ত করছে। তদন্ত কর্মকর্তা ওই বিমানের কেবিন ক্রু, যাত্রী ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে প্রকৃত ঘটনা তুলে আনার চেষ্টা করবেন। এখন পর্যন্ত মামলার তদন্তে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি নেই। মামলার অগ্রগতি থাকলে সিএমপি কমিশনার এ বিষয়ে নিয়মিত ব্রিফ করবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে আইজিপি ড.মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদ খানম মিতু হত্যা মামলার তদন্ত দ্রুত শেষ করে আদালতে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য তদন্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমানের সভাপতিত্বে এতে চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি খোন্দকার গোলাম ফারুকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ীদের মাঝে অতিথিরা পুরস্কার তুলে দেন।

ছিনতাইকারীর কবলে পড়ার চার দিন পর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ ময়ূরপঙ্খী চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাদিক বিমানবন্দর থেকে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উড়োজাহাজটি বুধবার রাত ৯টা ২২ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। ২৪ ফেব্রুয়ারি ছিনতাইচেষ্টার ঘটনার পর থেকে এটি শাহ আমানত বিমানবন্দরেই ছিল।

শাহ আমানত বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার এবিএম সরওয়ার-ই-জামান বৃহস্পতিবার যুগান্তরকে বলেন, ‘উড়োজাহাজটি বুধবার রাত ৯টা ২২ মিনিটে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে গেছে এবং ঢাকা বিমানবন্দরে পৌঁছেছে।’

এদিকে ছিনতাইচেষ্টার ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত চলছে। উড়োজাহাজটির ভেতরে কী ঘটেছিল – তা জানতে ব্ল্যাক বক্স ও সিসিটিভি ফুটেজ চাইবে তদন্ত কর্মকর্তা। শিগগিরই এ ব্যাপারে বিমান কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজেশ বড়ুয়া।

ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাইগামী বিমানের বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ছিনতাইচেষ্টা করা হয়। উড়াল দেয়ার কিছুক্ষণ পরই উড়োজাহাজের ভেতরে বোমা ও অস্ত্রসদৃশ বস্তু নিয়ে পাইলট ও ক্রুদের ভয় দেখান এক ব্যক্তি। তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে কথা বলতে চেয়েছিলেন। এরই একপর্যায়ে উড়োজাহাজটি চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

যাত্রীরা নিরাপদে নেমে যেতে পারলেও সাগর নামের একজন ক্রুকে আটকে রাখে ছিনতাই চেষ্টাকারী। একপর্যায়ে সাগরও নেমে আসেন। রানওয়েতে অবস্থান করা উড়োজাহাজটি ঘিরে রাখে পুলিশ, র‌্যাব ও সেনা সদস্যরা। পরে কমান্ডো অভিযানে প্রথমে আহত ও পরে নিহত হন ছিনতাইচেষ্টাকারী।

পরদিন জানা যায়, ছিনতাই চেষ্টাকারীর নাম পলাশ আহমেদ। তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের দুধঘাটা এলাকার পিআর জাহান সরদারের ছেলে এবং চিত্রনায়িকা সিমলার সাবেক স্বামী।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় একজন প্রতিমন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো নিয়ে কথা বলার সময় সম্প্রতি জুনাইদ আহমেদ পলকের মাথায় হেলমেট ছাড়া বাইকে চড়ে সচিবালয়ে যাওয়ার ঘটনা উল্লেখ করে সাংবাদিকরা ওবায়দুল কাদেরকে প্রশ্ন করেন।

তিনি বলেন, ওই প্রতিমন্ত্রী সড়কে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী হওয়ার ঘটনায় আমার কাছে ভুল স্বীকার করেছেন।

‘তাকে আমি এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করেছিলাম। পরে তিনি এ ঘটনায় ভুল বুঝতে পেরে দুঃখ প্রকাশের পাশাপাশি ভবিষ্যতে এমন ঘটনা ঘটবে না বলে আমাকে কথা দিয়েছেন।’

নতুন সরকারে শপথ নেয়ার পর দিন মঙ্গলবার দুপুরে আগারগাঁওয়ের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগে দ্রুত যেতে পলক মোটরবাইকে সওয়ার হয়েছিলেন।

মোটরবাইকে চেপে অফিসযাত্রার ছবি নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টের টাইমলাইনেও পোস্ট করেন পলক। তাতে তাকে হেলমেট ছাড়া অবস্থায় দেখে সমালোচনা করেন অনেকে।

আইনপ্রণেতা হিসেবে হেলমেট না পড়ে মোটরযান আইন ভাঙায় ফেসবুকে পলকের পোস্টেই সমালোচনা করেন অনেকে।

এ প্রসঙ্গে পলক পরে সাংবাদিকদের বলেন, তাড়াহুড়ো করে যাওয়ার জন্য আমি যে বাইকের সাহায্য নিয়েছি, তার কাছে কোনো বাড়তি হেলমেট ছিল না। আর ওটা রাইড শেয়ারিংয়ের বাইকও ছিল না, ব্যক্তিগত বাইক ছিল।

হেলমেট ছাড়া বাইকে সওয়ার, পলকের দুঃখ প্রকাশ